উল্লাপাড়ায় অনুষ্ঠিত হলো এইচ.টি ইমাম স্মৃতি নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার ফাইনাল

উল্লাপাড়ায় অনুষ্ঠিত হলো এইচ.টি ইমাম স্মৃতি নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার ফাইনাল

উল্লাপাড়া ডেস্কঃ



সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার সোনতলায় করতোয়া নদীতে গ্রাম বাংলা ঐতিহ্যবাহী এইচ টি ইমাম স্মৃতি ফাইনাল নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে করতোয়া নদীতে উল্লাপাড়া দূর্গানগর এবং সলপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের এই নৌকা বাইচে প্রতিযোগিতা আয়োজন করেন।

সিরাজগঞ্জ -৪ ( উল্লাপাড়া ) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য তানভীর ইমাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ফাইনাল নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

নৌকা বাইচ ফাইনাল প্রতিযোগিতা দেখতে আসা দর্শকের উদ্দেশ্য এমপি তানভীর ইমাম বলেন, বর্ষা এলেই গ্রামে গ্রামে বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। অতীত সাংস্কৃতির ধারাবাহিকতায় এখনও গ্রামের সৌখিন ব্যক্তিরা বড় বড় পানসি ও কোষা নৌকা তৈরি করে বর্ষা মৌসুমে জনগণকে বিনোদ দিয়ে থাকেন।এটা খুবই খুশির বিষয়। আমরা বাঙ্গালী সর্বদা বিনোদন প্রেমী। এইচ টি ইমাম স্মৃতি নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার আয়োজন করায় লক্ষ লক্ষ মানুষ আনন্দের সহিত এ নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা উপভোগ করছে।

আয়োজক কমিটির সভাপতি ও সলপ ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার শওকাত ওসমান এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ও দুর্গানগর ইউপি চেয়ারম্যান আফছার আলী সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) দেওয়ান মওদুদ আহমেদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফয়সাল কাদের রুমি, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান পান্না, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রীবলী ইসলাম কবিতা, মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ হুমায়ুন কবির, বিআরডিবির চেয়ারম্যান সুলতান হাফিজ খাঁন, সলপ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী এহসানুল হক সন্টু, জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি মোঃ আব্দুস সামাদ সরকার, পৌর কাউন্সিলর এস এম আমিরুল ইসলাম আরজু,এমপি তানভীর ইমামের একান্ত সহকারী মীর আরিফুল ইসলাম উজ্জল প্রমুখ।

পাবনার সুজানগর উপজেলার শাড়ির ভিটা এক্সপ্রেস ফাইনাল প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ও রেশমবাড়ির বাংলার বাঘ এক্সপ্রেস রানার্স আপ হয়েছে।

প্রতিযোগিতাটি উপভোগ করতে নদীর দুপাড়ে সোনতলা, বেলকুচি, সিরাজগঞ্জের বহুলী সহ বিভিন্ন উপজেলার হাজার হাজার লোকের আগমন ঘটে। অত্যন্ত প্রাণবন্তকর ও আনন্দমুখর পরিবেশে খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়।

পাবনাসহ উপজেলার ১৮টি নৌকা ওই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।