ঋণের টাকা জোগাড় করতেই বেলকুচিতে ফকির চাঁনকে হত্যা করে অটোভ্যান ছিনতাই!

ঋণের টাকা জোগাড় করতেই বেলকুচিতে ফকির চাঁনকে হত্যা করে অটোভ্যান ছিনতাই!

বেলকুচি ডেস্কঃ



ব্যাংক ঋণ ও এনজিওর কিস্তি পরিশোধ করার জন্য সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে চালককে হত্যা করে ব্যাটারী চালিত অটো ভ্যান ছিনতাই করেন হত্যাকারী। এ ঘটনায় হত্যাকারীসহ দুই জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সোমবার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এতথ্য জানান সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম ও অপস) সামিউল আলম।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- বেলকুচি উপজেলার ক্ষিদ্রমাটিয়া গ্রামের শ্রী বলরাম চন্দ্র রাজবংশীর ছেলে শ্রী সঞ্জিত চন্দ্র রাজবংশী (৩৫) ও কামারখন্দ উপজেলার ভারাঙ্গা গ্রামের মৃত বেলাল হোসেনের ছেলে আব্দুর রহিম (৩০)।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম ও অপারেশন) বলেন, গ্রেপ্তারকৃত সঞ্জিত চন্দ্র রাজবংশী ব্যাংক ও এনজিও থেকে ঋণ নিয়েছেন। ঋনের টাকা তিনি পরিশোধ করতে পারছিলেন না। ঋণ পরিশোধ করতে তিনি অটোভ্যান ছিনতাই ও চালককে হত্যার পরিকল্পনা করেন।

পরিকল্পনা মোতাবেক গত ১৭ অক্টোবর সন্ধ্যায় বেলকুচি উপজেলার গাবগাছি নতুন পাড়ার হযরত আলী প্রামানিকের ছেলে ফকির চাঁনের ব্যাটারী চালিত অটোভ্যান ভাড়া নেয় সঞ্জিত চন্দ্র রাজবংশী। পরে ফকির চাঁনকে অপহরণ করে উল্লাপাড়া উপজেলার রেলষ্টেশনের পাশে নিয়ে যায়। সেখানে রশি দিয়ে ফকির চাঁনের গলায় ফাস দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। এর পর লোহার রড দিয়ে উপর্যপরি আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করে লাশ গোপন করার জন্য রাস্তার পাশে নিপিয়ার ঘাসের মধ্যে ফেলে অটো ভ্যান নিয়ে পালিয়ে যায়।

এদিকে ফকির চাঁনের কোন সন্ধ্যান না পেয়ে তাকে বিভিন্ন জায়গায় খুঁজতে থাকে পরিবারের সদস্যরা। ২০ অক্টোবর ফেসবুকের মাধ্যমে ফকির চাঁনের নিখোঁজের বিষয়টি জানতে পারেন বেলকুচি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তাজমিলুর রহমান। তাৎক্ষণিক ওসি ফকির চাঁনের পরিবারকে ডেকে আনেন এবং থানায় নিখোঁজ সংক্রান্ত জিডি করান।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরো বলেন, নিখোঁজ সংক্রান্ত জিডি করার পর প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘটনার সাথে জড়িত সঞ্জিত চন্দ্র রাজবংশী সনাক্ত করে তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি এই হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেন। পরে তার দেখানো মতে উল্লাপাড়া রেলষ্টেশন থেকে ঘাটিনাগামী পাকা রাস্তার পাশে নিপিয়ার ঘাসের মধ্য থেকে গতকাল রোববার সকালে ভ্যান চালক ফকির চাঁনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, ব্যাটারী চালিত অটো ভ্যানটি ২৪ হাজার টাকায় কামারখন্দ উপজেলার আব্দুর রহিমের কাছে বিক্রি করা হয়। পরে ভ্যানটি উদ্ধার ও আব্দুর রহিমকে আটক করা হয় এবং হত্যার কাজে ব্যবহ্নত লোহার রডটিও উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় নিহত ফকির চাঁনের ভাই আব্দুল খালেক বাদী হয়ে দুই জনকে আসামি করে বেলকুচি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।