কাজিপুরে ৬২ বস্তা সরকারি চাল ক্রয় ও আত্মসাৎ মামলার এজাহার নামীয়দের সংবাদ সম্মেলন

কাজিপুরে ৬২ বস্তা সরকারি চাল ক্রয় ও আত্মসাৎ মামলার এজাহার নামীয়দের সংবাদ সম্মেলন

কাজিপুর সংবাদদাতাঃ


সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে সরকারি চাল ক্রয় ও আত্মসাৎ মামলায় এজাহার নামীয় আসামীগণ নিজেদের অবস্থান ব্যাখা করে লিখিত বক্তব্য দিয়েছেন। 

শুক্রবার (১৭ জুলাই) সকাল ১০ টায় কাজিপুর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে লিখিত বক্তব্যে এজাহার নামীয়রা নিজেদের নির্দোষ দাবী করে ঘটনার শিকার বলে উল্লেখ করেন।    

এসময় এজাহার নামীয় আবু বক্কর জানান, "আমি ভিজিডির চাল ক্রয় বিক্রয় এর সাথে কোন ভাবেই জড়িত নই। পুলিশ অন্য কারো প্ররোচনায় আমার নামে মামলা দিয়েছে। এলাকার মানুষকে জিজ্ঞেস করলে প্রকৃত সত্য জানা যাবে।"

এসময় এজাহার নামীয় চাঁন মিয়া এবং আনোয়ার হোসেন জানান, "দীর্ঘদিন যাবৎ স্থানীয় যুবলীগ নেতা ও নিশ্চিন্তপুর ইউপি চেয়ারম্যান জালাল মাস্টারের ভাতিজা আলমগীর হোসেন আলো সরকারি চাল  ক্রয়- বিক্রয়ের সাথে জড়িত। তাঁরই দেখে তারা দুজনে বন্যাকালীন সময়ে গো খাদ্য হিসেবে কার্ডধারী ব্যক্তিদের নিকট হতে নগদ টাকায় ৩০ কেজির ৮ বস্তা চাল ক্রয় করেন। যুবলীগ নেতা আলো ভিজিডির চাল ক্রয় বিক্রয়ের মূল হোতা হলেও অজ্ঞাত কারণে পুলিশ তাকে আসামী করেনি। মূলত আলোকে গ্রেফতার করলেই আসল ঘটনা বেরিয়ে আসবে বলে তারা জানান। 

উল্লেখ্য, গত ১৩ জুলাই নিশ্চিন্তপুরের ডিগ্রীদোরতা বাজার হতে সরকারি ৬২ বস্তা চাল জব্দ করে নাটুয়ারপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ। পরদিন এই ঘটনায় পুলিশ নিজে বাদী না হয়ে গ্রাম পুলিশকে দিয়ে চাঁন মিয়া, রফিকুল, বক্কর ও আনোয়ারের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করে কাজিপুর থানায় মামলা দায়ের করেছে।