জুমার নামাজের মধ্য দিয়ে কার্যক্রম শুরু হলো সিরাজগঞ্জের দুই মডেল মসজিদের

জুমার নামাজের মধ্য দিয়ে কার্যক্রম শুরু হলো সিরাজগঞ্জের দুই মডেল মসজিদের

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ



জুমার নামাজের মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু হলো সিরাজগঞ্জে নব নির্মিত দুইটি মডেল মসজিদের। মুসল্লিরা নতুন মসজিদের প্রথম আজানের ধ্বনি শুনেই নামাজ পড়ার জন্য ভিড় জমান।

শুক্রবার (১১ জুন) দুপুরে শহরের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ (খান সাহেবের মাঠ) মাঠের পাশে জেলা মডেল মসজিদ ও সদর উপজেলা পরিষদ চত্বরে উপজেলা মডেল মসজিদে নামাজ আদায় করেন মুসল্লিরা। দুটি মসজিদেই ছিল মুসল্লিদের উপচে পড়া ভিড়। দুটি মসজিদে প্রায় দেড় সহব্রাধিক মুসল্লি নামাজ আদায় করেন।

জেলা মডেল মসজিদে নামাজ আদায় করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মুনীর হোসেন, পৌরসভার মেয়র মেয়র সৈয়দ আব্দুর রউফ মুক্তা, প্রেসক্লাবের সভাপতি হেলাল আহমেদ ও আওয়ামী লীগ নেতা আসাদউদ্দিন পবলুসহ প্রায় ৮ শতাধিক মুসল্লি। ইমামতি করেন পেশ ইমাম ও খতিব মওলানা মো. তরিকুল ইসলাম।

অপরদিকে সদর উপজেলা মসজিদে নামাজ আদায় করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার পারভেজ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসিম রেজা নূর দীপুসহ ৭ শতাধিক মুসল্লি।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১০ জুন) মুজিববর্ষ উপলক্ষে সিরাজগঞ্জের দুটিসহ সারাদেশে ৫০টি মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পেশ ইমাম ও খতিব মওলানা মো. তরিকুল ইসলাম বলেন, ৮ শতাধিক মুসল্লির অংশগ্রহণে প্রথম জুমার নামাজ আদায় হলো এই মসজিদে। এখন থেকে ৫ ওয়াক্ত নামাজ হবে এখানে।

সিরাজগঞ্জের ইসলামী ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক মো. ফারুক আহমেদ জানান, কেন্দ্রীয় ঈদগাহ (খান সাহেবের মাঠ) এর পাশে জেলা মডেল মসজিদটিতে প্রতিদিন ১২শ ও সদর উপজেলার সামনের মডেল মসজিদে ৮শ মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারবেন। আরব বিশ্বের মসজিদ কাম ইসলামিক কালচারাল সেন্টারের আদলে নির্মিত এসব মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্সে থাকবে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা। রয়েছে নারী-পুরুষের আলাদা অজু ও নামাজ আদায়ের সুবিধা।

লাইব্রেরি, গবেষণাকেন্দ্র, ইসলামিক বই বিক্রয়কেন্দ্র, কোরআন হেফজ বিভাগ, শিশু শিক্ষা, অতিথিশালা, বিদেশি পর্যটকদের আবাসন, মরদেহ গোসলের ব্যবস্থা, হজযাত্রীদের নিবন্ধন ও প্রশিক্ষণ, ইমামদের প্রশিক্ষণ, অটিজম কেন্দ্র, গণশিক্ষাকেন্দ্র ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র থাকবে। এছাড়াও রয়েছে ইমাম-মুয়াজ্জিনের আবাসনসহ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য অফিসের ব্যবস্থা এবং গাড়ি পার্কিংয়ের সুবিধা।