তাড়াশে স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করায় বখাটেকে গণপিটুনি

তাড়াশে স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করায় বখাটেকে গণপিটুনি

তাড়াশ ডেস্কঃ



প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় বিদ্যালয়ে আসার পথে সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করার সময় এক বখাটেকে ধরে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী। 

শনিবার (৬ নভেম্বর) সকাল পৌনে ১০টার দিকে তালম ইউনিয়নের গুল্টা বাজার আদিবাসী দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের অদূরে গোলাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

বখাটে শহিদুল ইসলাম (২২) উপজেলার তালম ইউনিয়নের গোন্তা গ্রামের নবির উদ্দিনের ছেলে। 

বিষয়টি তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ফজলে আশিক নিশ্চিত করেছেন। 

গুল্টা বাজার আদিবাসী দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সাত্তার ও এলাকাবাসী জানান, গোন্তা গ্রামের নবির উদ্দিনের ছেলে শহিদুল ইসলাম প্রায়ই তার বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীকে (১৩) বিদ্যালয়ে আসা যাওয়ার পথে প্রেম নিবেদন করে আসছিল। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার ছাত্রীর অভিভাবকরা বখাটের অভিভাবককে জানালেও এ বিষয়ে তারা কোন ব্যবস্থা নেয়নি। 

এরই ধারাবাহিকতায় ওই ছাত্রী শনিবার সকালে বিদ্যালয়ে আসছিল। এ সময় বখাটে শহিদুল মোটরবাইক নিয়ে ওই ছাত্রীকে অশালীন কথাবার্তা বলে রাস্তা আটকিয়ে উত্যক্ত করছিল। 

এক পর্যায়ে বিদ্যালয়ের অদূরে গোলাপুর এলাকায় এসে বখাটে মোটরবাইক থেকে নেমে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। আর বিষয়টি রাস্তায় চলাচলকারী লোকজন টের পেয়ে শহিদুর ইসলামকে ধরে গণধোলাই দিয়ে বিদ্যালয় কক্ষে আটকিয়ে রাখে।

পরে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিষয়টি তাড়াশ ইউএনও মো. মেজবাউল করিমকে জানালে তিনি ঘটনাস্থলে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছা. লায়লা জান্নাতুল ফেরদৌসকে পাঠান। 

এ প্রসঙ্গে তাড়াশ ইউএনও মো. মেজবাউল করিম জানান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছা. লায়লা জান্নাতুল ফেরদৌসকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে পাঠিয়ে ছিলাম। সেখানে তিনি সব শুনে ছাত্রীর অভিভাবকদের বখাটের বিরুদ্ধে থানায় নিয়মিত মামলা করার পরামর্শ দিয়েছেন এবং  দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বখাটেকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।