তাড়াশে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ

তাড়াশে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ

তাড়াশ ডেস্কঃ



সিরাজগঞ্জের তাড়াশে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মীর উপর হামলা চালিয়ে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় রাতেই তাড়াশ থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। 

আহত সতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী হলেন, দেশীগ্রাম ইউনিয়নে শ্রীকৃঞ্চপুর গ্রামের মৃত মোহাম্মাদ আলী আকন্দের ছেলে আব্দুল আজিজ (৬০)। গুরুত্বর আহতবস্থায় তাকে প্রথমে তাড়াশ হাসপাতালে পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতালে স্থানাত্বর করা হয়েছে। 

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) রাত সাতটার দিকে উপজেলার দেশীগ্রাম ইউনিয়নের ভোগলমান চারমাথা বাজারে এ হামলার ঘটনা ঘটে। 

স্থানীয়রা জানান, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দেশীগ্রাম ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন মো. আব্দুল কুদ্দুস সরকার। এছাড়া স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে জ্ঞানেন্দ্রনাথ বসাক নির্বাচন করছেন। 

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জ্ঞানেন্দ্রনাথ বসাকের কর্মী আব্দুল লতিফসহ অনেকেই জানান, সোমবার রাত সাতটার দিকে আব্দুল আজিজ ভোগলমান বাজারে মান্নানের মুদি দোকানে বসে ছিল। এ সময় নৌকার প্রার্থী আব্দুল কুদ্দুস সরকারের ভাই আব্দুল মান্নান সরকার (৪০) আব্দুর রাজ্জাক মাস্টার ও ছেলে রুহুল আমিনসহ ১৫-২০ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তার ওপর হামলা চালিয়ে ব্যাপক মারধর করে ফেলে রেখে যায়। এ সময় তাকে গুরুত্বও আহতবস্থায় উদ্ধার করে তাড়াশ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতেই সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। 

তাড়াশ হাসপাতালে জরুরী বিভাগে দায়িত্বররত চিকিৎসক ডা. সুজন দাস জানান, আহত রোগী মাথায় অনেকগুলো সেলাই দেয়া হয়েছে। এছাড়া তার শরীরের বিভিন্নস্থানে আঘাতের চিহৃ রয়েছে। অবস্থা গুরুত্বর হওয়ায় বাহিরে রেফার্ড করা হয়েছে।

দেশীগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের নৌকার প্রার্থী আব্দুল কুদ্দুস সরকার জানান, আমার কর্মী সর্মথকরা নৌকার পোষ্টার লাগাতে গেলে সতন্ত্র প্রার্থীও লোকজন পোষ্টার লাগাতে বাধা দেন। পরে আমার লোকজনদের তারা হামলা করে। 

তাড়াশ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. ফজলে আশিক বলেন,  এ ঘটনায় তাড়াশ থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।