ভারতের উত্তর প্রদেশের গঙ্গায় ভেসে আসছে মরদেহ; ছিঁড়ে-ছিঁড়ে খাচ্ছে শিয়াল-কুকুর-শকুন

ভারতের উত্তর প্রদেশের গঙ্গায় ভেসে আসছে মরদেহ; ছিঁড়ে-ছিঁড়ে খাচ্ছে শিয়াল-কুকুর-শকুন

ডেস্ক রিপোর্ট :



ভারতের উত্তর প্রদেশের গঙ্গায় হাজার হাজার মরদেহ ছিঁড়ে, ছিঁড়ে খাচ্ছে শিয়াল-কুকুর-শকুন। 

কিছুদিন ধরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় ভারতের উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ ও বিহারে নদীতে অসংখ্য মৃতদেহ ভাসমান চিত্র। ভিডিওতে দেখা গেছে করোনাক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের দেহ নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়েছে। এদিকে, উত্তরপ্রদেশের ২৭ জেলায় গঙ্গার তীরে কবর দেওয়া হয়েছে অসংখ্য মৃতদেহ। গঙ্গার ১১৪০ কিলোমিটার যাত্রাপথে নদীর তীরে ২ হাজারের বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়।

ভাইরাল হওয়া এইসব ভিডিও ও চিত্র নিয়ে স্থানীয়রা বলছেন, চার শতাধিক মৃতদেহ কবর দেয়া হয়েছে সেখানে। মাটি সরে গিয়ে কিছু মৃতদেহ বেরিয়ে পড়ছে। এছাড়া চিল, শকুনও ভিড় করছে। এসব মরদেহ থেকে সংক্রমণ ও দূষণ ছড়াতে পরে বলে আশঙ্কা করছেন দেশটির পরিবেশবিদরা।

তবে উন্নাওয়ের পরিস্থিতি অত্যন্ত ভয়াবহ বলে সেখানকার বাসিন্দারা জানাচ্ছেন। এই এলাকার দু’টি ঘাটের (শুক্লাগঞ্জ ও বক্সার) কাছে ৯০০-র বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া হয়েছে। অনেক মৃতদেহ টেনে বের করে নিয়ে আসছে কুকুর, শেয়াল।

উন্নাওয়ের পাশে ফতেপুরে গঙ্গার তীরে ২০টির বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া হয়েছে বলে খবর দিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম। একই ভাবে প্রয়াগরাজ, বারাণসী, চন্দৌলি, ভদোহী ও মির্জাপুরে গঙ্গার তীরে ৫০টিরও বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া রয়েছে। কিছু জায়গায় বিক্ষোভের পর স্থানীয় প্রশাসন মৃতদেহ বের করে এনে শেষকৃত্যের ব্যবস্থা করছে।

এদিকে গাজিপুরে এখনও পর্যন্ত ২৮০টির বেশি মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে গঙ্গার তীরে। তার মধ্যে অনেক মৃতদেহ বের করে শেষকৃত্যের ব্যবস্থা করছে পুলিশ ও প্রশাসন। কিন্তু প্রায় প্রতিদিন ১২ থেকে ১৫টি করে মৃতদেহ সেখানে এসে মাটিতে পুঁতে দেওয়া হচ্ছে। কে বা কারা এই ঘটনা ঘটাচ্ছে সেই বিষয়ে এখনও প্রশাসনের তরফে কিছু বলা হয়নি।