রায়গঞ্জে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েই চেয়ারম্যান দাবি, মিষ্টি বিতরণ

রায়গঞ্জে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েই চেয়ারম্যান দাবি, মিষ্টি বিতরণ

রায়গঞ্জ ডেস্কঃ



ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের তফসিল ঘোষণার পর মনোনয়নপত্র জমা দিয়েই নিজেকে চেয়ারম্যান হিসেবে দাবি করছেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মো. রফিকুল ইসলাম নান্নু। ইতোমধ্যে তোরণ নির্মাণসহ মিষ্টি বিতরণ করেছেন এলাকাবাসীর মাঝে।

শনিবার (২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পাঙ্গাসী ইউনিয়ন পরিষদের মূল ফটকের সামনে একটি তোরণের উপরের অংশে লেখা রয়েছে পাঙ্গাসী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পরিচিতি সভায় অধ্যাপক ডা. আব্দুল আজিজ এমপি মহোদয়ের আগমন, শুভেচ্ছায় স্বাগতম। আর সেই তোরণের নিচের অংশে লেখা, শুভেচ্ছান্তে মো. রফিকুল ইসলাম নান্নু, চেয়ারম্যান ৮নং পাঙ্গাসী ইউনিয়ন পরিষদ, রায়গঞ্জ, সিরাজগঞ্জ।

এ ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও সাধারণ ভোটারদের মাঝে শুরু হয়েছে নানা প্রশ্ন। কেউ বলছে ভোটের আগেই চেয়ারম্যান হলেন কীভাবে?

পাঙ্গাসী বাজারের ব্যবসায়ী আব্দুল মতিন বলেন নান্নুকে সবাই বিএসসি মাস্টার বলে চেনে। সে কখনো আওয়ামী লীগ করেনি। তার নির্বাচনী পোস্টারে রাজনৈতিক কোনো পদবী না থাকলেও চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে নাম রয়েছে। যে কারণে চেয়ারম্যান হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন এই নান্নু বিএসসি।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. রফিকুল ইসলাম নান্নুর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, এমপির আগমন উপলক্ষে ওই তোরণ আমি তৈরি করেছি। তবে চেয়ারম্যান শব্দের পর পদপ্রার্থী শব্দটি ভুলে লেখা হয়নি। এটা আমার ভুল না, কম্পিউটার অপারেটরের ভুল। আর মানুষ মিষ্টি খেতে চাইলো তাই সবাকে নিয়ে একটু মিষ্টি মুখ করেছি। আল্লাহ চাইলে চেয়ারম্যানতো হতেই পারি।

অন্যদিকে, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম বলেন, ওই তোরণ শুক্রবার সকালে পরিষদের প্রধান ফটকের সামনে লাগানোর পর থেকেই আমি বিভিন্ন লোকের প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছি।

এ বিষয়ে পাঙ্গাসী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে এমন কাজ কাণ্ডজ্ঞানহীনতার পরিচয়।