শাহজাদপুরে মহাশ্মশানের শতবর্ষী বৃক্ষ কর্তন; হিন্দু সম্প্রদায়ে ক্ষোভ

শাহজাদপুরে মহাশ্মশানের শতবর্ষী বৃক্ষ কর্তন; হিন্দু সম্প্রদায়ে ক্ষোভ

​​​​​​শামছুর রহমান শিশির (শাহজাদপুর)



শাহজাদপুর মহাশ্মশানের শতবর্ষী বটগাছটি কেটে ফেলায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। এর প্রতিবাদে মহাশ্মশান কমিটির ৪ সদস্য পদত্যাগ করেছেন।

জানা গেছে, ঘটা করে বহু আগেই শাহজাদপুর মহাশ্মশানের যুগলবন্দী বট-পাকুড়ের বিয়ে দেয়া হয়েছিল। এরপর থেকে এ বট-পাকুড় যুগলবন্দী গাছ দুটি স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছে ধর্মীয়ভাবে সমাদৃত হয়ে আসছে। কিন্তু হঠাৎ করেই মহাশ্মশান কমিটির সাধারন সম্পাদক প্রতীপ কুমার পোদ্দার এ গাছের ঐতিহ্যের কথা না বুঝে আলোচনা ছাড়াই গাছটি কেটে ফেলে। প্রাচীন এ গাছটি কেটে ফেলায় এর প্রতিবাদে শাহজাদপুর মহাশ্মশান কমিটির অন্যতম সদস্য রতন বসাক, রাম বসাক, ভরত বসাক ও পবিত্র কুমার কুন্ডু একযোগে পদত্যাগ করেন।

এ বিষয়ে শাহজাদপুর পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বিনয় কুমার পাল ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, ‘কারো মতামত ছাড়াই মহাশ্মশান কমিটির সাধারন সম্পাদক প্রদীপ কুমার পোদ্দার অতি সম্প্রতি একক সিদ্ধান্তে যুগলবন্দী বট-পাকুড়ের বট গাছটি কেটে ফেলায় স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে শাহজাদপুর মহাশ্মশান কমিটির সাধারন সম্পাদক প্রদীপ কুমার পোদ্দারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি দম্ভোক্তির সাথে বলেন, ‘যা ইচ্ছা তাই লেখেন। আমার কিছুই করতে পারবেন না।’

অপরদিকে, এ ব্যাপারে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহা বলেন, ‘বিষয়টি জানা নেই। তবে গাছটি অমূল্য সম্পদ ছিল। বন বিভাগ ব্যবস্থা নিলেও নিতে পারতো।’