সিরাজগঞ্জ সদরে নাতি হত্যার দায়ে দাদীর মৃত্যুদণ্ড

সিরাজগঞ্জ সদরে নাতি হত্যার দায়ে দাদীর মৃত্যুদণ্ড

সিরাজগঞ্জে রিফাত হোসেন নামে ৭ বছর বয়সী নাতীকে হত্যার দায়ে সৎ দাদী কুলসুম খাতুন ওরফে রত্নাকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়াও বিজ্ঞ আদালত আসামীকে ২০ হাজার টাকার অর্থদন্ডেও দন্ডিত করেছেন। 

মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) সকালে সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ ফজলে খোদা মো: নাজির আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় দেন। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাস্ট্রপক্ষের আইনজীবি (পিপি) আব্দুর রহমান। 

দন্ডপ্রাপ্ত কুলসুম সদর উপজেলার ধুকুরিয়া গ্রামের মজিবুর রহমান শেখের স্ত্রী এবং মামলার বাদী ও নিহত শিশুর বাবা চান মিয়ার সৎ মা। 

রাস্ট্রপক্ষের আইনজীবি (পিপি) আব্দুর রহমান ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে জানান, খুবই দুঃখ ও কষ্ট জনক হত্যা এটা। শিশু রিফাতের মা কুলসুম খাতুন রত্নার অবৈধ পরকীয়ার বিষয়টি জানার কারনেই সেই ঘটনার জেড়ে পারিবারিক দ্বন্দ্বের রেশ ধরে রত্না এই হত্যাকাণ্ড ঘটান। 

মামলার বিবরণে তিনি বলেন, ২০১৮ সালের ১৭ জুন দুপুরে রিফাত তার বাবা ও মায়ের সাথে ঘুমাচ্ছিল। একটু পর রিফাত ঘুম থেকে উঠে বাইরে খেলতে গেলে তার সৎ দাদী কুলসুম খাতুন রিফাতকে কৌশলে বাড়ির পাশের পাটক্ষেতে নিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন।

পরে বিষয়টি সন্দেহ জনক হওয়ায় রিফাতের বাবা চান মিয়া হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে রিফাতের সৎ দাদী কুলসুম খাতুন রত্না আদালতে স্বীকারোক্তিও দেন। মামলায় সাক্ষী প্রমান শেষে আদালত আজ রত্নাকে মৃত্যুদন্ডের এই রায় প্রদান করেন। এসময় আসামী পক্ষের আইনজীবি ছিলেন তোফিকুর রহমান জয়।